spot_img

সীমান্ত টপকে দক্ষিণ কোরিয়ায় কিমের সেনারা

অবশ্যই পরুন

উত্তর কোরিয়ার কয়েকজন সেনা সীমান্ত অতিক্রম করে দক্ষিণ কোরিয়ায় প্রবেশ করলে সতর্কীকরণ গুলি ছুড়েছে দক্ষিণের সামরিক বাহিনী। গতকাল রোববার (১০ জুন) দুপুর সাড়ে ১২টায় দুই কোরিয়াকে বিভক্তকারী অসামরিক অঞ্চল বা ডিমিলিটারাইজড জোনে এই ঘটনা ঘটে। সোমবার বার্তা সংস্থা ইয়োনহাপের বরাতে এসব তথ্য জানিয়েছে আলজাজিরা

এক বিবৃতিতে দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ (জেসিএস) জানিয়েছে, রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উত্তর কোরিয়ার সেনাদের একটি দল ডিএমজেডের মধ্যে সামরিক সীমানা রেখা অতিক্রম করে। বিষয়টি দেখতে পেয়ে দক্ষিণের সেনারা সতর্কবার্তা প্রচার করে এবং আকাশে ফাঁকা গুলি চালায়। এরপর উত্তরের সেনারা নিজেদের সীমান্ত এলাকায় ফিরে যায়।

গত এক সপ্তাহ ধরে দুই কোরিয়ার মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। মূলত উত্তর কোরিয়া থেকে দক্ষিণ কোরিয়ায় এক হাজারের বেশি ময়লা ভর্তি বেলুন পাঠানো হলে দুই দেশের মধ্যে এই উত্তেজনা দেখা দেয়। উত্তরের এমন আচরণের জবাবে সীমান্তে নিজেদের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রচারণা (প্রোপাগান্ডা) পুনরায় শুরু করে সিউল।

উত্তরের সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উনের প্রভাবশালী বোন কিম ইয়ো জং বলেছেন, দক্ষিণের এই সম্প্রচার অভিযান দুই দেশের মধ্যে সংঘাত উসকে দিতে পারে।

দক্ষিণের পিয়ংইয়ংবিরোধী মাইক বাজানো নিয়ে অত্যন্ত সংবেদনশীল উত্তর কোরিয়া। কারণ দেশটি মনে করে, এই ধরনের বার্তা সম্মুখসারির সেনা ও বাসিন্দাদের বিপথগামী করে দিতে পারে। এমনকি এতে কিম জং উনের ক্ষমতা দুর্বল হতে পারে।

তবে বেলুনকাণ্ডের বিষয়টা নতুন মনে হলেও দুই কোরিয়ার মধ্যে এমন পাল্টাপাল্টি বেলুন পাঠানোর ঘটনা বহু পুরোনো। বলতে গেলে দশকের পর দশক এমন কাণ্ড করে এসেছে সিউল ও পিয়ংইয়ং। স্নায়ুযুদ্ধের সময় থেকে দুই কোরিয়ার জনমত নিজেদের পক্ষে টানতে এমন কাজ করে এসেছে শাসকগোষ্ঠী। তবে ২০১৮ সালে একটি চুক্তি হলে দুই দেশই এই কাজ থেকে বিরত থাকে। তবে ইতিমধ্যে এই চুক্তিটি ভেস্তে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

নিজ দেশে ইউরো, শেষটা রাঙাতে চান টনি ক্রুস

শুক্রবার (১৪ জুন) জার্মানিতে শুরু হবে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের ১৭ তম আসর। এই টুর্নামেন্টে চোখ রেখেই জার্মান কোচ ইউলিয়ান নাগেলসমানের...

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ