spot_img

সাকিব-মাহমুদউল্লাহকে বিশেষ উপহার দিতে চান নাজমুল হোসেন শান্ত

অবশ্যই পরুন

বাংলাদেশ দল নিয়ে প্রত্যাশার কখনোই কমতি থাকে না কোনো আসরে। ব্যতিক্রম নয় এবারো, তারুণ্য আর অভিজ্ঞতার সংমিশ্রণে নাজমুল হোসেন শান্ত ছাপিয়ে যেতে চান আগের সব আসরকে। ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে দাঁড়ানো সাকিব-মাহমুদউল্লাহকে দিতে চান ‘ভালো স্মৃতি’ উপহার।

সাকিব আল হাসান আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ দেশের ক্রিকেটের দুই স্তম্ভ। একসাথে জুটি গড়ে, কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কতো অর্জন এনে দিয়েছেন দেশকে। গড়েছেন কতো কীর্তি। তবে সময়ের সাথে সাথে দুজনেই এখন দাঁড়িয়ে ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে। যেকোনো সময় হয়তো অস্ত যেতে পারে তাদের নামের ক্রিকেট সূর্য।

এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলেও আছেন দুজনে। ধারণা করা হচ্ছে- হয়তো শেষবার ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের এই বিশ্ব আসরে খেলছেন দুজনে। হয়তো বিশ্বকাপের পর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটকেও বিদায় বলে দিতে পারেন তারা। ফলে আসরটা একটু বেশিই আবেগঘণ তাদের দুজনের জন্য।

দুজনে একসাথে খেলেছিলেন প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও। খেলছেন এবারের নবম আসরেও। মাঝে ২০২১ বিশ্বকাপ পর্যন্ত দুজনে খেলেছেন সব কয়টি আসরেই। তবে এরপরই ছন্দ পতন ঘটে মাহমুদউল্লাহর, ২০২২ বিশ্বকাপ আসরে ঠাঁই হয়নি তার। তবে সাকিব ছিলেন সেই আসরেও।

অর্থাৎ সাকিব খেলতে যাচ্ছেন তার নবম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সাকিব ছাড়া এমন কীর্তি আছে কেবল ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মার। বিপরীতে মাহমুদউল্লাহ খেলবেন অষ্টম বিশ্বকাপ।

শুধু তাই নয়, আরো একটা মিল আছে দুজনের। দুজনেই নিজেদের খেলা শেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ছিলেন অধিনায়ক হিসেবে। মাহমুদউল্লাহ ২০২১ ও সাকিব দায়িত্ব সামলেছেন ২০২২ আসরে। তবে এই আসরে দুজনেই খেলছেন নাজমুল হোসেন শান্তর অধীনে।

দলের অভিজ্ঞ এই দুই ক্রিকেটারকে নিয়ে বিশেষ ইচ্ছে আছে অধিনায়ক শান্তর। সাকিব-মাহমুদউল্লাহকে বিশেষ কিছু উপহার দিতে চান তিনি। বিশ্বকাপ যাত্রার আগে আজ আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে জানালেন সেই ইচ্ছের কথা।

শান্ত বলেন- ‘জানি না এটাই তাদের শেষ বিশ্বকাপ কিনা। এটা একটা ধারণা। তবে আমরা যারা আছি, অপেক্ষাকৃত তরুণ, আমরা অবশ্যই চাইব, ওনারা এত লম্বা সময় ধরে খেলছেন, তাদের একটা ভালো স্মৃতি দিতে। ভালো একটা বিশ্বকাপ তাদের আমরা উপহার দিলাম, এটা অবশ্যই আমাদের দায়িত্ব।’

বিপরীতে দলের দুই অভিজ্ঞ সাকিব-মাহমুদউল্লাহর কাছেও চাওয়া আছে তার। বাংলাদেশ অধিনায়কের আশা- সাকিব, মাহমুদউল্লাহ তাদের দীর্ঘ অভিজ্ঞতা দিয়ে দলটাকে সমৃদ্ধ করেন।

এই নিয়ে শান্ত বলেন, ‘আমি চাইব ওনাদের যে অভিজ্ঞতা আছে, সেটা তারা দলের প্রত্যেক খেলোয়াড়ের মাঝে ছড়িয়ে দিন। আমাদের দলের যে ছোট ছোট জায়গাগুলোতে উন্নতির দরকার আছে, তাহলেই সেগুলোতে আমরা খুব ভালো করতে পারব।’

উল্লেখ্য, আগামী জুনে যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে বসবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর। সেই আসরে অংশ নিতে আজ বুধবার মধ্যরাতেই দেশ ছাড়ছেন সাকিব-শান্তরা। দেশ ছাড়ার আগের সব আনুষ্ঠানিকতাও সারা হয়েছে ইতোমধ্যেই। হয়েছে আনুষ্ঠানিক ফটোসেশনও। এরপর গণমাধ্যমের সাথে কথা বলেন দলনায়ক ও প্রধান কোচ।

সর্বশেষ সংবাদ

দক্ষ জনশক্তি রপ্তানির লক্ষ্যে দেশভিত্তিক প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নেবে সরকার

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে দক্ষ জনশক্তি প্রেরণের লক্ষ্যে দেশ ভিত্তিক প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক...

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ