spot_img

বিশেষ মর্যাদাপূর্ণ জিলকদ মাস

অবশ্যই পরুন

আরবি মাসগুলোর মধ্যে অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ মাস হচ্ছে জিলকদ মাস। আরব সংস্কৃতি অনুযায়ী স্থানীয়রা এই মাসে যুদ্ধবিগ্রহ, অন্যায়-অপরাধ থেকে বিরত থাকত এবং বিশ্রামে সময় অতিবাহিত করত। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘নিশ্চয়ই আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী সৃষ্টির দিন হতেই আল্লাহ তাআলার বিধান ও গণনা অনুযায়ী (আরবি) মাসের সংখ্যা ১২টি, এর মধ্যে ৪টি মাস (রজব, জিলকদ, জিলহজ ও মহররম) মর্যাদাপূর্ণ। এটাই সহজ-সরল দ্বীন। সুতরাং তোমরা এ মাসগুলোয় নিজেদের প্রতি জুলুম করো না।’ (সুরা তাওবা: ৩৬)

তাওরাত নাজিলের আগে হজরত মূসা (আ.) তুর পাহাড়ে চল্লিশ রাত অবস্থান করেছিলেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘স্মরণ করো, মূসার জন্য আমি ত্রিশ রাত নির্ধারণ করি এবং আরও দশ দিয়ে তা পূর্ণ করি। এভাবেই তার প্রতিপালকের নির্ধারিত সময় চল্লিশ রাতে পূর্ণ হয়।’ (সুরা আরাফ: ১৪২) ইবনে কাসির (রহ.) বলেন, ‘অধিকাংশ মুফাসসিরের মতানুসারে প্রথম ত্রিশ দিন ছিল জিলকদ মাস। আর বাকি দশ দিন ছিল জিলহজের প্রথম দশক।’ (ইবনে কাসির: ৩ / ৪২১)

এ মাসে রাসুল (সা.) সব থেকে বেশি ওমরাহ পালন করেছেন। আনাস (রা.) বলেন, ‘রাসুল (সা.) তার জীবদ্দশায় চারবার ওমরাহ পালন করেছেন, তার তিনটিই জিলকদ মাসে, আরেকটা হজের সঙ্গে জিলহজ মাসে।’ (মুসলিম: ১২৫৩)

সর্বশেষ সংবাদ

দক্ষ জনশক্তি রপ্তানির লক্ষ্যে দেশভিত্তিক প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নেবে সরকার

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে দক্ষ জনশক্তি প্রেরণের লক্ষ্যে দেশ ভিত্তিক প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক...

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ