spot_img

প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার করার অঙ্গীকারে ন্যাটোর শীর্ষ সম্মেলন

অবশ্যই পরুন

ইউক্রেনের প্রতি সমর্থন বাড়াতে এবং নিজস্ব প্রতিরক্ষা ও প্রতিরোধ প্রচেষ্টা জোরদার করার লক্ষ্য নিয়ে পশ্চিমা সামরিক জোট মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য দেশের নেতারা বুধবার এক শীর্ষ সম্মেলনে ওয়াশিংটনে সমবেত হয়েছেন।

এই বছরের শুরুতে ন্যাটো পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের একটি বৈঠকসহ নিম্ন স্তরে কয়েক মাস ধরে এই আলোচনা চলছে। তবে এখন তাদের চূড়ান্ত চুক্তিগুলো সম্পন্ন করার বিষয়টি নেতাদের ওপর নির্ভর করছে।

ন্যাটোর ৭৫ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় পরীক্ষার মুখোমুখি হওয়ার পটভূমিতে মঙ্গলবার বাইডেন শক্তির মাধ্যমে শান্তির পক্ষে জোরালো যুক্তি তুলে ধরেন।

পুতিনকে থামাবে ইউক্রেন

তিন দিনের শীর্ষ সম্মেলনের শুরুতে বাইডেন বলেন, ‘এটি মঙ্গলজনক যে আমরা আগের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী। কারণ ইতিহাসের এই মুহূর্তে আমাদের সম্মিলিত শক্তির প্রয়োজন।’

‘স্বৈরশাসকরা বৈশ্বিক ব্যবস্থাকে উল্টে দিতে চায়, এমন ব্যবস্থা যা প্রায় ৮০ বছর ধরে চলে আসছে এবং চলছে। সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো অশুভ ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে, বিশৃঙ্খলা ও দুর্ভোগ সৃষ্টি করছে। ইউরোপে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের আগ্রাসন যুদ্ধ অব্যাহত রয়েছে।’

বাইডেন বলেন, ‘তবে ইউক্রেন পুতিনকে থামাতে পারে এবং করবে- এতে কোনো সন্দেহ নেই।’

এই বক্তব্য শুনে নেতারা উচ্ছ্বসিত করতালিতে ফেটে পড়েন। তারা ইউক্রেনীয় বাহিনীকে সরবরাহের জন্য বর্তমানে যেসব স্বতন্ত্র জাতীয় প্রচেষ্টা আছে, সেগুলোকে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীকে সহায়তা করার জন্য ন্যাটো-সমন্বিত কর্মসূচির ভেতরে নিয়ে আসার পরিকল্পনা চূড়ান্ত করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার বাইডেন ও অন্য ন্যাটো নেতারা ইউক্রেনকে পাঁচটি অতিরিক্ত আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা পাঠানোর ঘোষণা দেন।

প্রতিরক্ষাব্যবস্থা শক্তিশালী করার জন্য বাইডেনের যুক্তিকে মঙ্গলবার তার প্রশাসনের অন্যান্য সদস্য জোরদার করেন। তার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা প্রতিরক্ষা শিল্পের নির্বাহীদের সাথে কথা বলেন এবং একটি রোমান প্রবাদ স্মরণ করিয়ে দেন : আপনি যদি শান্তি চান, তবে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হন।

ন্যাটো মিত্ররা অস্ত্র এবং গোলাবারুদের উৎপাদন বাড়াতে এবং নিজেদের মজুদের ঘাটতি পূরণ করার দিকে মনোযোগ দিয়েছে। এর মাধ্যমে তারা ইউক্রেনের চাহিদা পূরণ এবং নিজেদের প্রতিরক্ষার জন্য যা প্রয়োজন তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছে।

প্রতিরক্ষা শিল্পের নির্বাহীদের উদ্দেশে মঙ্গলবার দেয়া বক্তব্যে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সালিভান কয়েকটি সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ তুলে ধরেন। এর মধ্যে রয়েছে, আঞ্চলিক পর্যায়ে অস্ত্রের মজুদ এবং কমান্ড-অ্যান্ড-কনট্রোল ব্যবস্থা গড়ে তোলা, যাতে ন্যাটো সদস্যরা প্রয়োজন হলে দ্রুত মাঠে নেমে যেতে পারে।

একই সাথে, রাশিয়ার প্রতিরক্ষা শিল্পের সাথে তাল মিলিয়ে নেটোর উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এটা করেছে ‘আমাদের প্রতিরক্ষা শিল্পে ব্যাপক বিনিয়োগের মাধ্যমে’– যে বিনিয়োগ যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করেছে বলে প্রশাসন দাবি করছে।

তবে শীর্ষ সম্মেলনে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতার এই প্রদর্শন দেশের ভেতরে বাইডেনের দৃশ্যমান রাজনৈতিক সমস্যা আড়াল করতে পাড়বে কি না, তা নিয়ে বিশ্লেষকরা প্রশ্ন তোলা অব্যাহত রেখেছেন।

সাম্প্রতিক টেলিভিশন বিতর্কে বাইডেনের দুর্বল পারফরমেন্সের ফলে নভেম্বরের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য তাঁর প্রতি আহবান জানানো হয়েছে।

‘ন্যাটো জোটের জন্য আমেরিকান নেতৃত্ব কতটা গুরুত্ব বহন করে, এই ঘটনা আমাদের সেটাই মনে করিয়ে দিচ্ছে,’ বলছেন আমেরিকান এন্টারপ্রাইজ ইন্সটিটিউট-এর রিসার্চ ফেলো জিসেল ডোনেলি।

‘এই জোট আমেরিকার তৈরি; এটা আমেরিকান নেতৃত্বে বেঁচে থাকে এবং উন্নতি করে। এবং আমেরিকান নেতৃত্ব আর নেতাদের নিয়ে যখন সন্দেহ হয় … যখন আমেরিকান প্রেসিডেন্টের ঠান্ডা লাগে, তখন ন্যাটোর নিউমোনিয়া হয়,’ তিনি বলেন।

সূত্র : ভয়েস অব আমেরিকা

সর্বশেষ সংবাদ

ব্যান্ড তারকা ও সংগীতশিল্পী শাফিন আহমেদ আর নেই

ব্যান্ড তারকা ও সংগীতশিল্পী শাফিন আহমেদ আর নেই। বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল ৬টা ৫০ মিনিটে তিনি মারা...

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ