spot_img

রামেক হাসপাতালে আরও ২২ জনের মৃত্যু

অবশ্যই পরুন

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে করোনা সংক্রমণ ও উপসর্গ নিয়ে আরও ২২ জন মারা গেছেন।

বুধবার (২১ জুলাই) সকাল ৯টা থেকে বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) সকাল ৯টার মধ্যে হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে তারা মারা যান।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীর ১০ জন, নাটোরের ৬ জন, পাবনার ৪ জন এবং নওগাঁর ২ জন করে মারা গেছেন।

এই একদিনে রাজশাহীর ৪ জন পাবনার ২ জন এবং নাটোরের ১ জন করে মোট ৭ জন মারা গেছেন করোনা সংক্রমণে। এ ছাড়া করোনার উপসর্গ নিয়ে রাজশাহীর ৬ জন, নাটোরের ৫ জন,  নওগাঁর ২ জন এবং পাবনার ২ জনসহ মোট ১৫ জন মারা গেছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ জন পুরুষ এবং ৯ জন নারী প্রাণ হারিয়েছেন করোনায়। যাদের ১৩ জনের বয়স ৬১ বছরের ওপরে। এছাড়াও  ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ২ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ২ জন এবং ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে একজন মারা গেছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মরদেহ দাফনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৫ জন মারা গেছেন হাসপাতালের ১ নম্বর ওয়ার্ডে। এ ছাড়া ৩ ও ৪ নম্বর ওয়ার্ডে তিনজন করে, আইসিইউ ১৪, ১৭, ২২ ও ২৯/৩০ নম্বর ওয়ার্ডে ২ জন করে এবং ১৬  নম্বর ওয়ার্ডে ১ জন মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ৫১৩ শয্যার রামেক করোনা আইসোলেশন ইউনিটে রোগী ভর্তি ছিলেন ৪৩৪ জন। খালি নেই ২০ শয্যার আইসিইউ। করোনা নিয়ে এ পর্যন্ত ভর্তি রয়েছেন ২১০ জন। এ ছাড়া উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ১৬৬ জন। করোনা ধরা পড়েনি হাসপাতালে ভর্তি ৫৮ জনের নমুনায়। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩১ জন। এই একদিনে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৯ জন।

এর আগে বুধবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ল্যাবে ৫১ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে করোনা ধরা পড়েছে ২৩ জনের। একই দিনে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে আরও ৯৩ জনের। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২০ জনের। পরীক্ষার অনুপাতে রাজশাহীর ৩৭ দশমিক ০৪ শতাংশ এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের ২২ দশমিক ২ শতাংশ নমুনায় করোনা শনাক্ত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের এপ্রিল থেকে এই বছরের জুন পর্যন্ত রামেক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৭ হাজার ১৬১ জন রোগী। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়ে গেছেন ৫ হাজার ৯২৭ জন। এই ১৪ মাসে মারা গেছেন ১ হাজার ৭৮ জন। এর মধ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩৪৬ জনের। অন্যদের মৃত্যু হয়েছে উপসর্গ নয়তো অন্যান্য শারীরিক জটিলতায়।

সর্বশেষ সংবাদ

১১ আগস্ট থেকে খুলবে দোকানপাট

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে চলমান কঠোর বিধিনিষেধের মেয়াদ ১০ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এরপর ১১ আগস্ট থেকে দোকানপাট খুলে দেওয়া...

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ