spot_img

ক্যাপসুল দিয়ে হবে করোনা পরীক্ষা

অবশ্যই পরুন

করোনা রোগীর কাছে গিয়ে থুতু-লালার নমুনা সংগ্রহ করার ঝামেলা থাকবে না। রক্ত নিয়ে অ্যান্টিবডি টেস্ট করাতেও হবে না। ক্যাপসুলের সাহায্যেই করোনা রোগীকে শণাক্ত করার নতুন পদ্ধতি বের করে ফেলেছেন ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা।

দুই আঙুলের ফাঁকে ক্যাপসুল ভেঙে হবে পরীক্ষা। সংক্রমণ কতটা গভীরে গেছে, রোগী সঙ্কটাপন্ন কিনা, তাও বোঝা যাবে এই ক্যাপসুল-টেস্টেই, এমনটাই দাবি গবেষকদের।

লন্ডনের কুইন মেরি ইউনিভার্সিটির গবেষকরা এই ক্যাপসুল-টেস্টের পদ্ধতি সামনে এনেছেন। ‘রয়্যাল সোসাইটি ইন্টারফেস’ জার্নালে এই গবেষণার খবর সামনে এসেছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, কোভিড সংক্রমণের প্রাথমিক দুটি উপসর্গ হল স্বাদ ও গন্ধ চলে যাওয়া। অন্যান্য জটিল উপসর্গ ধরা না দিলেও এই দুটি সমস্যায় ভুগছেন বেশিরভাগ করোনা রোগীই। মৃদু সংক্রমণের ক্ষেত্রেও প্রাথমিকভাবে জ্বর, স্বাদহীনতা ও আচমকা নাকের গন্ধ নেওয়ার ক্ষমতা চলে যাচ্ছে রোগীদের।

স্মেল-টেস্ট করিয়ে রোগের জীবাণু আছে কিনা তা পরীক্ষা করছেন ডাক্তাররা। এই স্মেল-টেস্টেরই আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতি বের করেছেন কুইন মেরি ইউনিভার্সিটির গবেষকরা। এই পরীক্ষা হবে একটি ক্যাপসুল দিয়ে। এই ক্যাপসুলের ভেতরে থাকবে অ্যারোম্যাটিক ওয়েল।

রোগী যদি অ্যারোমা তেলের গন্ধ পায় তাহলে বুঝতে হবে শরীরে কোনও সংক্রমণ নেই। আর যদি গন্ধ না পায়, তাহলে বুঝতে হবে করোনা সংক্রমণ রয়েছে। সংক্রমণ কতটা ছড়িয়েছে সেটাও বোঝা যাবে এই পরীক্ষাতে।

এই গবেষণার দায়িত্বে থাকা বিজ্ঞানী আহমেদ ইসমাইল বলছেন, একটি স্ট্রিপের গায়ে লাগানো থাকবে ক্যাপসুল। এই স্ট্রিপটি দুই আঙুলের মাঝে ধরে চাপ দিলেই ক্যাপসুল ভেঙে যাবে। ভেতর থেকে অ্যারোমা তেলের সুগন্ধ ছড়িয়ে পড়বে। রোগী কতটা গন্ধ নিতে পারছে, কেমন অনুভূতি হচ্ছে ইত্যাদি পরীক্ষা করে সংক্রমণ কী পর্যায়ে রয়েছে তা ধরা যাবে।

বিজ্ঞানী ইসমাইল বলছেন, পারকিনসন্স ও অ্যালঝাইমোর্স রোগীদের ক্ষেত্রেও এই ক্যাপসুল স্মেল-টেস্ট কাজে লাগে। করোনা রোগীদের জন্য এই পদ্ধতি নতুনভাবে নিয়ে আসার চেষ্টা করা হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

বাজেট অধিবেশন শুরু ২ জুন

আগামী ২ জুন থেকে শুরু হবে জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন। মঙ্গলবার (১১ মে) জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের গণসংযোগ শাখার পরিচালক...

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ