spot_img

টটেনহ্যামকে হারিয়ে প্রতিশোধ নিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড

অবশ্যই পরুন

জয়রথ ছুটেই চলছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের। টটেনহ্যাম হটস্পারকে ৩-১ গোলে হারিয়ে প্রতিশোধ নিল রেড ডেভিল।

৩১ ম্যাচ শেষে ৬৩ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে সোলশায়ারের দল। সমান ম্যাচে ৪৯ পয়েন্ট নিয়ে ৭ নম্বরে আছে টটেনহ্যাম।
গেল বছর চার অক্টোবর। ওল্ড ট্রাফোর্ডে দুঃসহ এক রাত সঙ্গী হয়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের।
ইপিএলে টটেনহ্যাম হটস্পাররের সঙ্গে প্রথম দেখায় ৬-১ গোলে বিধ্বস্ত হয়েছিল তারা। হারের সে শোধ নিতে প্রতিটা মুহূর্ত অপেক্ষা করেছে রেড ডেভিল।
অবশেষে টটেনহ্যামের মাঠেই এল সে ক্ষণ। তবে এবার বিজয়ী দলের নাম ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।
মিল শুধু একটাই ওল্ড ট্রাফোর্ডের মত এবার টটেনহ্যামের মাঠে তাদের হারিয়ে প্রতিশোধের মিশন সেরেছে সোলশায়ারের দল।
ম্যাচ শেষে তাই বড় নির্ভার ইউনাইটেড কোচ। বিজয়ীর হাসি কাভানি, ফ্রেড ও গ্রিনউডদের চোখেমুখেও।
এর আগে টটেনহ্যামের মাঠে শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।
প্রতিপক্ষ টটেনহ্যামও নিজেদের মাঠে লড়াই করেছে সমানে সমান। ৩৩ মিনিটে কাভানিকে হতাশ করেন রেফারি। রেড ডেভিলদের হতাশার মাঝেই প্রথম লিড পায় টটেনহ্যাম হটস্পার। গোল করেন সন হিউং মিন।
গেল বছর দু-দলের প্রথম সাক্ষাতেও গোল করেছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ান এই ফুটবলার।
বিরতির পর গোল শোধে মরিয়া হয়ে ওঠে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ৫৭ মিনিটে অতিথি শিবিরে স্বস্তি ফেরান ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার ফ্রেড।
সমতা ফিরিয়েই যেন নিজেদের ফিরে পায় ইউনাইটেড। ম্যাচে প্রতিপক্ষের ফুটবলারদের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে হলুদ কার্ড দেখা কাভানি জ্বলে উঠলে জয়ের পথ খুঁজে পায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ৭৯ মিনিটে রেড ডেভিলদের ২-১ গোলে এগিয়ে দেন এই উরুগুইয়ান।
ম্যাচের যোগ করা সময়ে বাকি কাজটা সেরে ফেলেন ম্যাসন গ্রিনউড। পল পগবার সহায়তায় গোল করেন তিনি। আর তাতেই প্রতিপক্ষের মাঠে তাদের হারের তিক্ততা দিয়ে প্রতিশোধের স্বস্তি নিয়ে ঘরে ফেরে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

সর্বশেষ সংবাদ

রাশিয়ায় হিটলারের নাৎসি বাহিনীর বিরুদ্ধে জয় উদযাপন

১৯৪৫ সালের ৯ মে তারিখের সকাল রাশিয়ায় হিটলারের নাৎসি বাহিনীর পরাজয়ের দিন হিসেবে স্মরণীয়। রোববার নাৎসিদের হারানোর ৭৬ বছর...

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ