‌‘মিয়ানমারকে নিবন্ধিত সাড়ে আট লাখ রোহিঙ্গার তালিকা পাঠিয়েছি’

অবশ্যই পড়ুন

টি-টেনে নেতৃত্ব পেলেন নাসির

ফিটনেসহীনতায় বাংলাদেশের ঘরোয়া দু’টি টুর্নামেন্টে জায়গা হয়নি নাসির হোসেনের। তবে টি-টেন লীগের চতুর্থ আসরে দল পেয়েছেন তিনি। পুনে ডেভিলসের...

এবারের একুশে বইমেলা চলবে ১৮ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত

আগামী ১৮ মার্চ থেকে শুরু হতে যাওয়া এবারের অমর একুশে বই মেলা চলবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত। অর্থাৎ এবারের বই...

লিপস্টিক-নেলপলিশ লাগাতে পারবেন মার্কিন নারী সেনারা

মার্কিন নারী সেনারা এখন থেকে আগের চেয়ে বেশি সাজসজ্জা করতে পারবেন। পেন্টাগন সম্প্রতি এ বিষয়ে নিয়মকানুন হালনাগাদ করেছে। সে...

অধিনায়ক হিসেবে তিন ফরম্যাটেই কামিন্সকে চান ক্লার্ক

ঘরের মাঠে সর্বশেষ বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফিতে  ভারতের কাছে হারের পর বর্তমান টেস্ট অধিনায়ক টিম পেইনের অধিনায়কত্ব এবং উইকেটকিপিং নিয়ে সমালোচনার...

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দাঁড়াতে পারেন মাইক পম্পেও

২০২৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দাঁড়াতে পারেন সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। এ জন্য সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে...

আমরা মিয়ানমারকে প্রায় সাড়ে আট লাখ রোহিঙ্গার তালিকা পাঠিয়েছি, যাদের সবার বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা রয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

তিনি জানান, মিয়ানমার এদের মধ্যে ৪২ হাজারকে ভেরিফাই করেছে।

আজ (বুধবার) বিকেল পৌনে ৪টায় লালমাটিয়া হাউজিং সোসাইটি স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রাঙ্গণে পৌষ উৎসবের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সঙ্গীত-শিক্ষণ প্রতিষ্ঠান সুরের ধারা।

ড. মোমেন বলেন, আগামী ১৯ জানুয়ারি ঢাকাতে বাংলাদেশ মিয়ানমার ও চীনের সচিব পর্যায়ের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এই বৈঠকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়ে আলোচনা হবে। আমরা আশাবাদী বৈঠকে সফল হব।

পৌষ উৎসবের উদ্বোধন করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, একটি অগ্রসর রাষ্ট্র হিসেবে আমরা বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করতে চাই। এ ক্ষেত্রে সংস্কৃতিকর্মীরা ভূমিকা রাখতে পারেন।

উৎসব উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন- সুরের ধারার অধ্যক্ষ রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ও অধ্যাপক শফি আহমেদ।

ড. মোমেন বলেন, এ উৎসবে সাংস্কৃতিক পরিবেশনার পাশাপাশি ক্ষুদ্র-কুঠির শিল্পের স্টলও বসেছে। এতে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। করোনার সময় সংস্কৃতি কর্মী-সংগঠন ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এ আয়োজনে বিনোদনের পাশাপাশি আর্থিক সুবিধাও রয়েছে, এটি দারুণ বিষয়।

তিনি আরো বলেন, বাঙালির সকল উৎসব ঐক্যের প্রতীক। আবহমান বাংলার এসব উৎসব আমাদের ভ্রাতৃত্ব বৃদ্ধি করে। এ ধরনের আয়োজন সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে হবে।

বাঙালির পুরনো ঐতিহ্য পৌষ উৎসবকে নতুন করে যান্ত্রিক নাগরিক জীবনে নতুনরূপে চর্চার প্রচেষ্টায় ‘সুরের ধারা’ বিগত ছয় বছর ধরে এ আয়োজন করে আসছে। প্রতি বছর দুই দিনের আয়োজন হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার উৎসবের আয়োজন একদিনের।

- Advertisement -
- Advertisement -

সর্বশেষ সংবাদ

টি-টেনে নেতৃত্ব পেলেন নাসির

ফিটনেসহীনতায় বাংলাদেশের ঘরোয়া দু’টি টুর্নামেন্টে জায়গা হয়নি নাসির হোসেনের। তবে টি-টেন লীগের চতুর্থ আসরে দল পেয়েছেন তিনি। পুনে ডেভিলসের...
- Advertisement -

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

- Advertisement -