নির্ধারিত সময়েই প্রকল্প শেষ করতে হবে

অবশ্যই পড়ুন

প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে প্রদর্শনী দেখলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

‘শেখ হাসিনা: অন দ্য রাইট সাইড অব হিস্ট্রি’ শীর্ষক দু’মাসব্যাপী চলমান শিল্পকর্ম প্রদর্শনী ঘুরে দেখলেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত...

উগান্ডার নির্বাচনে মুসেভেনির জয়, বিরোধীদের প্রত্যাখ্যান

পূর্ব আফ্রিকার দেশ উগান্ডায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট ইয়েরি মুসেভেনিকে জয়ী ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। অবশ্য বিরোধীরা এই...

সাকিবকেই যত ভয় মায়ার্সের

ছিলেন এক বছরের নির্বাসনে। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ দিয়ে ফিরেছেন ক্রিকেটে। কিন্তু সেভাবে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি তিনি। বল হাতে...

গবেষণায় দেশসেরা তৃতীয় অবস্থানে রাবি

আন্তর্জাতিক নির্ভরযোগ্য বিজ্ঞানভিত্তিক জার্নাল, বই ও গবেষণা সম্মেলনগুলোর তথ্য নিয়ে কাজ করা ‘স্কোপাস’ থেকে তথ্য নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করেছে...

আইনজীবী রুডি জুলিয়ানিকে ফি দিচ্ছেন না ট্রাম্প

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার আইনজীবী রুডি জুলিয়ানিকে আইনি সেবার ফি দিচ্ছেন না। এমনকি রুডি জুলিয়ানির ফোনকলও ধরছেন না। দ্য...

কোনো প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হবে না। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতসহ নির্ধারিত সময়েই প্রকল্পের কাজ শেষ করতে হবে বলে জানিয়েছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং।

বুধবার (১৩ জানুয়ারি) সচিবালয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় প্রকল্প পরিচালকদের উদ্দেশে তিনি এ কথা বলেন।

উশৈসিং বলেন, ভালো কাজের জন্য পুরস্কার দেয়া হবে, তেমনি কাজ খারাপ করলে তিরস্কার ও শাস্তি। পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ, উন্নয়ন বোর্ড ও জেলা পরিষদকে সমন্বয় করে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় প্রকল্প প্রণয়নের সময় দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকায় যেতে হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এক জায়গার একাধিক সংস্থা যেন প্রকল্প না নেয় তা নিশ্চিত করতে সমন্বয় করতে হবে। বাস্তবায়িত প্রকল্প থেকে জনগণ যেন দীর্ঘমেয়াদী উপকার পায়, সেটা বিবেচনা করে প্রকল্প নিতে হবে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে প্রকল্প প্রণয়ণের সময় কৃষিকে অগ্রাধিকার দেয়ার নির্দেশ দেন বীর বাহাদুর উশৈসিং। তিনি বলেন, যাতে পার্বত্য এলাকার চাষযোগ্য কোনো কৃষি জমি অনাবাদী না থাকে। পার্বত্য এলাকার কৃষকদের উন্নত জাতের ফল ও উচ্চ মূল্যের বিভিন্ন মসলা উৎপাদনের আগ্রহ রয়েছে। কিন্তু তাদের সেই সামর্থ্য নাই। এসব কৃষকদের কথা বিবেচনা করে পার্বত্য চট্টগ্রামের মিশ্র ফল চাষ ও উচ্চ মূল্যের মসল্লা চাষের প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সফিকুল আহম্মদের সভাপতিত্বে সভায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুপ্রু চৌধুরী, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মংসুপ্রু চৌধুরী, মন্ত্রণালয়ের পদস্থ কর্মকর্তাসহ দপ্তর ও সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

- Advertisement -
- Advertisement -

সর্বশেষ সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে প্রদর্শনী দেখলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

‘শেখ হাসিনা: অন দ্য রাইট সাইড অব হিস্ট্রি’ শীর্ষক দু’মাসব্যাপী চলমান শিল্পকর্ম প্রদর্শনী ঘুরে দেখলেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত...
- Advertisement -

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

- Advertisement -